বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ, ১৪ জেলায় ৬০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ের পূর্বাভাস

বঙ্গোপসাগর এলাকায় লঘুচাপ সৃষ্টি হয়েছে। এর ফলে দেশের ১৪টি জেলার ওপর দিয়ে ৪৫-৬০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ের পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। এছাড়া সারাদেশে অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে। সোমবার ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরগুলোকে দেওয়া সতর্ক বার্তায় এ কথা বলা হয়েছে। সতর্ক বার্তায় বলা হয়, পাবনা, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, এবং সিলেট অঞ্চলসমূহের ওপর দিয়ে দক্ষিণ/দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কিলোমিটার

বৃষ্টি থাকতে পারে আরও দুদিন, তাপমাত্রা কমবে

বৃষ্টির প্রবণতা আরও দুদিন থাকতে পারে। ফলে কমতে পারে তাপমাত্রা। এরমধ্যে কোথাও কোথাও ভারি বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া বঙ্গোপসাগরে দেখা দিয়েছে লঘুচাপ। সোমবার (৩ অক্টোবর) বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়। এদিকে বৃষ্টি বাড়ায় দেশের বেশিরভাগ অঞ্চলে তাপমাত্রা কমেছে। দিনের তাপমাত্রা আরও কিছুটা কমতে পারে। রোববার সকাল ৬টা থেকে সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় রংপুর ছাড়া সব বিভাগে বৃষ্টি হয়েছে। তবে বৃষ্টির প্রবণতা বেশি ছিল চট্টগ্রাম বিভাগে। এসময় সবচেয়ে বেশি ১৩৪

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘নোরু’, গতি ১৮৫ কিলোমিটার

ফিলিপাইনের জনবহুল দ্বীপ লুসোনের দিকে ধেয়ে আসছে শক্তিশালী টাইফুন ‘নোরু’। ম্যানিলা ও কেসোন ছাড়াও ফিলিপাইনের বেশ কিছু বড় শহর এই দ্বীপে অবস্থিত। প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে এরই মধ্যে উপকূলীয় এলাকা থেকে লোকজনকে সরিয়ে নিতে শুরু করেছে ফিলিপাইন কর্তৃপক্ষ। সেদেশের দুর্যোগ সংস্থা জানিয়েছে, টাইফুন ‘নোরু’ সুপার টাইফুনে পরিণত হয়েছে এবং আগের চেয়েও তীব্রতর হয়ে উঠেছে। স্থানীয় সময় শনিবার সন্ধ্যায় প্রতি ঘণ্টায় এর বাতাসের গতিবেগ ছিল ১২০ কিলোমিটার (৭৪.৪ মাইল)। রোববার সকালে যা বেড়ে হয়েছে ঘণ্টায় ১৮৫

বৃষ্টি বাড়তে পারে ৪ বিভাগে, তাপমাত্রা কমতে পারে উত্তরে

দেশের চার বিভাগে বৃষ্টির প্রবণতা বাড়ার পূর্বাভাস দিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর। একই সঙ্গে দেশের উত্তরাঞ্চলে তাপমাত্রা কমতে পারে বলেও জানিয়েছে সংস্থাটি। রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) শরতের দ্বিতীয় মাস আশ্বিনের ১০ তারিখ। এদিন রংপুর, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও সিলেট- এ চার বিভাগের অনেক জায়গায় বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ। এরই মধ্যে শনিবার সকাল থেকে রোববার সকাল পর্যন্ত বিচ্ছিন্নভাবে রংপুর বিভাগের পঞ্চগড়ে অতিভারি বৃষ্টি হয়েছে। পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় ১৫০ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। ঢাকা, রাজশাহী ও খুলনা বরিশাল

বৃষ্টি নেই বেশিরভাগ অঞ্চলে, অপরিবর্তিত থাকবে তাপমাত্রা

বর্তমানে দেশের কিছু স্থানে বৃষ্টি হলেও দেশের বেশিরভাগ অঞ্চলই রয়েছে বৃষ্টিহীন। শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) থেকে আগামী কয়েকদিন এমন অবস্থা অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় সিলেট, রংপুর ও চট্টগ্রাম বিভাগে বৃষ্টির প্রবণতা বেশি ছিল। এ সময় সবচেয়ে বেশি ৫৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে ফেনীতে। খুলনা, বরিশাল ও ঢাকা বিভাগ ছিল প্রায় বৃষ্টিহীন। আবহাওয়াবিদ মো. ওমর ফারুক বলেন, শনিবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় রংপুর,

২ দিন পর বাড়তে পারে বৃষ্টি, নামলো সতর্ক সংকেত

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট সুস্পষ্ট লঘুচাপ ভারতের স্থলভাগে উঠে লঘুচাপে পরিণত হওয়ার পর শক্তি ক্ষয়ে নিঃশেষ হয়ে গেছে। বাংলাদেশের ওপর থেকেও কেটে গেছে এর প্রভাব। তাই সমুদ্রবন্দরগুলোতে বহাল থাকা ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত নামিয়ে ফেলেছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর। একই সঙ্গে আগামী দুদিন পর বৃষ্টির প্রবণতা বাড়তে পারে বলেও পূর্বাভাস দিয়েছে সংস্থাটি। বুধবার দেশের অধিকাংশ অঞ্চলই ছিল বৃষ্টিহীন। সিলেটে কিছুটা বৃষ্টি হয়েছে। অন্যান্য অঞ্চলে খুবই সামান্য বৃষ্টি হয়েছে। বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ৭৬

আরও শক্তিশালী হলো লঘুচাপ, ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত বহাল

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপটি আরও শক্তিশালী হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্যের কারণে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় সমুদ্রবন্দরগুলোতে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত বহাল রেখেছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর। একই সঙ্গে দক্ষিণ ও মধ্যাঞ্চলে বৃষ্টির প্রবণতা বাড়তে পারে বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ। সোমবার সকাল ৯টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় সব বিভাগেই বৃষ্টি হয়েছে। তবে বৃষ্টির পরিমাণ ছিল খুবই সামান্য। এসময় সবচেয়ে বেশি ১৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে পটুয়াখালীতে। ঢাকায়

সাগরে লঘুচাপ, খুলনায় বাড়তে পারে বৃষ্টি

বঙ্গোপসাগরে একটি লঘুচাপ সৃষ্টি হয়েছে। আপাতত খুলনায় বৃষ্টি বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এর প্রভাবে এ সপ্তাহের শেষের দিকে সারাদেশে বৃষ্টি বাড়ার পূর্বাভাস দিয়েছে সংস্থাটি। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকাল পর্যন্ত চট্টগ্রাম ও সিলেটে কিছুটা বৃষ্টি ছিল। এছাড়া অন্যান্য বিভাগে খুবই সামান্য বৃষ্টি হয়েছে। এ সময়ে সবচেয়ে বেশি ৪১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে চট্টগ্রামে। ঢাকায় ১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। আবহাওয়াবিদ মো. ওমর ফারুক জানান, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও

তাপমাত্রা বাড়ার বার্তা দিলো আবহাওয়া অফিস

সারা দেশে আজও দিন ও রাতের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া পরবর্তী ৭২ ঘণ্টায় উত্তর বঙ্গোবপসাগর এলাকায় ফের একটি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে। আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, গতকাল দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল তেঁতুলিয়ায় ৩৪.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর সর্বনিম্ন তাপমাত্রাও ছিল ঈশ্বরদীতে ২৪.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়া খুলনা, মোংলা, সাতক্ষীরা ও কুতুবদিয়ায় ৩৪.০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। শনিবার সকালে আবহাওয়া অধিদফতর এসব তথ্য

তিনদিনের মধ্যে ফের লঘুচাপ, বাড়তে পারে তাপমাত্রা

আগামী তিনদিনের মধ্যে বঙ্গোপসাগরে ফের লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। তবে আপাতত বৃষ্টির প্রবণতা কম থাকতে পারে, একই সঙ্গে তাপমাত্রা বাড়ার ধারা অব্যাহত থাকতে পারে। গত ৭ আগস্ট বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপের সৃষ্টি হয়। সেদিনই সমুদ্রবন্দরগুলোতে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত জারি করা হয়। লঘুচাপটি শক্তিশালী হয়ে ধীরে ধীরে নিম্নচাপে পরিণত হয়। নিম্নচাপে পরিণত হওয়ার পর এটি ভারতের স্থলভাগে উঠে আসে। পরে তা ভারত ও বাংলাদেশের বৃষ্টি ঝরিয়ে ক্রমে দুর্বল হয়ে শেষ হয়ে যায়।